রসায়ন

বেনজিনের অজানা গল্প

জৈব রসায়ন যাকে ছাড়া অচল। এই বেনজিন এর গঠনটা সকলের পছন্দ, জৈব রসায়ন যারা পছন্দ করেন না তাদের বেলাতেও একই।

কিন্তু তোমরা কী জানো বেনজিন কেনো এমন মজাদার গঠন বা রিং স্ট্রাকচার, এর পেছনের লম্বা ইতিহাস কি পড়েছো? কখনো কি এ প্রশ্ন গুগল বাবাকে করেছো?

বেনজিন গঠনের ব্যাপারে যে ব্যক্তির গল্প তোমাকে জানতে হবে তিনি হলেন 

ফ্রেডরিক অগাস্ট কেকুলে (Friedrich August Kekule) ১৮২৯ সালে সেপ্টেম্বর মাসে জার্মানিতে জন্মগ্রহণ করেন। ইউরোপের একজন নামকরা প্রথম সারির রসায়ন পন্ডিত এবং বেনজিনের ‘কেকুলে স্ট্রাকচার’ এর আবিষ্কারক। বেলজিয়ামে থাকাকালীন ১৮৬৫ সালে ফ্রেঞ্চ ভাষায় একটি পেপার প্রকাশ করেন তিনি, বেনজিনের একটি গঠন বর্ণনা করেন যেখানে ৬ সদস্যবিশিষ্ট কার্বন পরমাণু দিয়ে গঠিত এবং পর্যায়ক্রমে একবন্ধনী ও দ্বিবন্ধনী দ্বারা সজ্জিত। গবেষণার উন্নতির সাথে সাথে বেনজিন সহ অন্যান্য অ্যারোমেটিক যৌগের উপকারিতা বিজ্ঞানী মহলের দৃষ্টিগোচর হয়। ১৮৯০ সালে জার্মান কেমিক্যাল সোসাইটি একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন কেকুলে কে বিশেষভাবে সংবর্ধনা দেওয়ার উদ্দেশ্যে এখানে তিনি তার সেই বিখ্যাত স্বপ্নের কথা জানান। ফায়ার প্লেসের আগুনের সামনে চেয়ারে বসা অবস্থায় তিনি এক স্বপ্ন (Daydream) দেখেন। স্বপ্নটি ঠিক এমন ছিল, একটি সাপ তার নিজের লেজ কামড়ে ধরেছে! যা থেকে তিনি নাকি বেনজিনের এমন গঠনের ধারণা পেয়েছেন।

যদিও এই সাপের লেজ কামড়ের বিষয়টি প্রাচীনকালের সাথে সম্পর্কযুক্ত। কেকুলে স্বপ্নটি প্রাচীনকালের এক বিশেষ চিহ্ন যা ওরোবোরস (Ouroboros) নামে পরিচিত। অনেক মনোবিজ্ঞানী, বিজ্ঞানের ঐতিহাসিকরা কেকুলের এই সিম্বলিজম-ধর্মী সৃজনশীল চিন্তাভাবনাকে সাদরে গ্রহণ করলেও একজন নামকরা ঐতিহাসিক ও রসায়নবিদ এই ঘটনা স্বীকার করতে নারাজ। তিনি হলেন সাউর্দান ইলিনয়স বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়নের অধ্যাপক ডঃ জন এইচ ওটিজ (Dr. John H Wotiz), তার দাবী হল এমন স্বপ্ন তিনি দেখেননি বরং তার আগে অন্যান্য রসায়নবিদ এমন গঠনের ধারণা দিয়েছেন।

ডক্টর ওটিজ এ বিষয়ে অত্যধিক গবেষণা করে ১৯৯০ সালে এ বিষয়ে খোলাসা করেন। এ ছাড়া ডঃ ওটিজ কেকুলে বর্ণিত অপর একটি স্বপ্নের কথা উল্লেখ করেন, যেখানে ছটি বানর একে অপরের হাত ও পায়ের সাহায্যে কোনো বস্তু আঁকড়ে রয়েছে (“To grasp and hang on to other objects.”)। আরেকবার লন্ডনে ঘোড়ার গাড়িতে যাত্রার সময় তিনি আরেক দিবাস্বপ্ন দেখেন। তার নিজের ভাষায় বললে… “The atoms were gamboling before my eyes!” তিনি আরও বলেন, ”I saw how the larger ones formed a chain, dragging the smaller ones after them but only at the ends of the chain.” 

বলাবাহুল্য ডঃ ওটিজ উপরিউক্ত সব স্বপ্নের কাহিনী গুলো এককথায় নাকচ করেছেন।

ডঃ ওটিজ কেকুলেকে বেনজিনের প্রকৃত আবিষ্কারক বলার বিরুদ্ধে। তিনি বলেন প্যারিস জার্নালে 1854 সালে একজন ফরাসি রসায়নবিদ লরেন্ট (Auguste Laurent) পরিষ্কারভাবে বেনজিনের রিং স্ট্রাকচার উপস্থাপন করেন। ইহা ছাড়াও স্কটল্যান্ডের Archibald Scott Couper ও অস্ট্রিয়ার Joseph Loschmidt কেকুলের অনেক আগেই অনুরূপ সিদ্ধান্তে আসেন। তাই ডঃ ওটিজ কেকুলের কথিত এইসব স্বপ্ন সম্পর্কে দ্বিমত পোষণ করেন। যা আমাদের নতুন করে ভাবায় কে বেনজিনের গঠনের প্রকৃত আবিষ্কর্তা? 

Reference:

1. Chemistry Textbook

2. Wikipedia

3. https://www.nytimes.com/1988/08/16/science/the-benzene-ring-dream-analysis.html

4. Image source: Getty images

© Md Zahid Ansari

Leave a comment

Your email address will not be published.